গর্ভবতীরা গায়ে যা লাগালে সন্তানের বুদ্ধি বাড়ে!

ভিটামিন ডি গর্ভস্থ শিশুর জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। শিশুর জন্মের আগে থেকেই তার যে বুদ্ধির বিকাশ ঘটতে থাকে, তার সঙ্গে ভিটামিন ডি বিশেষভাবে সংযুক্ত। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, গর্ভবতী মহিলার শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব থাকলে তার গর্ভস্থ সন্তানের বুদ্ধির বিকাশ ঠিকমতো হয় না। আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি’র উপকারিতা নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে যে গর্ভবতী মহিলার শরীরে ভিটামিন ডি’র পরিমাণ নির্ধারণ করে অনাগত সন্তানের বুদ্ধির বিকাশ কেমন হবে।

মোবাইল এক যমদূত!

তথ্য-প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় মোবাইল ফোন এখন সবার হাতে হাতে। যন্ত্রটি সহজলভ্য হওয়ার পর থেকে এর নেতিবাচক প্রভাব প্রতিনিয়তই পড়ছে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে। এতে করে বাড়ছে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা। আমাদের শরীরে মোবাইল ফোনের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে কমবেশি আমরা অনেকে জানি। কিন্তু শিশুদের জন্য এটি কতটা মারাত্মক ক্ষতিকর, তা হয়তো অনেকের ভাবনার বাইরে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণা অনুসারে, মোবাইল ফোন মাইক্রোওয়েভ ওভেনের সমপরিমাণ রেডিয়েশন ছড়িয়ে থাকে। ১৫ মিনিট একটানা মোবাইলে কথা বললে মস্তিষ্ক ও কান-সংলগ্ন ত্বক গরম হয়ে

দ্রুত ওজন কমায় টমেটো

বাজারে টমেটোর সরবরাহ প্রচুর, দামও খুবই কম। এই টমেটো গুণে ভরপুর। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি ও খনিজ পদার্থ। টমেটো দেহের রক্তচাপের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, ত্বক উজ্জ্বল করতে সিদ্ধহস্ত। তবে ওজন কমানোর উপকরণ হিসাবে টমেটো তুলনাহীন। টমেটো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। বিটা-ক্যারোটিন ও লাইকোপেনে সমৃদ্ধ টমেটো চোখের দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। তবে এক গ্লাস টমেটোর রস দ্রুত মেদ কমাতে সহয়তা করে। টমেটোর রসে ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম। একটি ১০০ গ্রাম টমেটোতে মাত্র

মশা মারার নিরাপদ ওষুধ কোনটি বুঝবেন যেভাবে

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে গত বছরের তুলনায় কিউলেক্স মশার সংখ্যা চারগুণ হয়ে গেছে। তার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে মশাবাহিত রোগবালাইয়ের পরিমাণ ও মানুষের ভোগান্তি। যে কারণে মশা তাড়ানোর জন্য পণ্যের ব্যবহারও বেড়েছে। এর মধ্যে আছে বিভিন্ন ধরণের কয়েল, স্প্রে, ক্রিম জাতীয় পণ্য। বাংলাদেশে মশার ওষুধ বাজারজাত করার আগে প্রত্যেকটি পণ্যের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্লান্ট প্রটেকশন উইং থেকে লাইসেন্স নিতে হয়। সংস্থাটি বলছে, দেশে এই মুহূর্তে ৪৫০টির বেশি ব্র্যান্ডের বিভিন্ন ধরণের মশার ওষুধ পাওয়া যায়।

পেঁপে খাওয়া যাদের জন্য বিপজ্জনক

ঢাকা : চিকিৎসকরা হৃদরোগ এবং উচ্চ কোলেস্টেরল রোগীদেরকে পেঁপে খাওয়ার পরামর্শ দেন। কেননা পেঁপে এমন একটি স্বাস্থ্যকর ফল, যা সারা বছরই পাওয়া যায়। কাঁচা কিংবা পাকা দুই অবস্থাতেই পেঁপে খেয়ে থাকেন সবাই। অনেকেই আবার গরমে আরাম পেতে পাকা পেপের জুস খেয়ে থাকেন। পেঁপেতে থাকা প্যাপেইন নামক এনজাইম খাদ্যের বিপাক প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে। অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ পেঁপে ত্বক ও চুলের জন্য বিশেষভাবে উপকারী। তবে উপকারিতার সঙ্গে সঙ্গে এর রয়েছে কিছু ক্ষতিকর দিকও! যা বয়স্কদের পাশাপাশি ছোটদের জন্যও

আনারসের খোসাতেই মিলবে পাঁচ জটিল রোগ মুক্তি

ঢাকা : আনারসের খোসা আমাদের অনেক জটিল রোগ থেকে মুক্তি দিতে সক্ষম। এর খোসায় রয়েছে বহু গুণাগুণ, যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। বর্তমান সময়ে বাজারে সহজলভ্য একটি ফল হচ্ছে আনারস। এই গরমে প্রশান্তি পেতে আমারা কমবেশি সবাই এই সুস্বাদু ও রসালো ফলটি খেয়ে থাকি। যা স্বাস্থ্যের জন্যও খুব উপকারী। জানেন কি, এমন কিছু ফল রয়েছে যার বীজ ও খোসা ফলের মতোই সমান পুষ্টিকর। এরকম ফলের মধ্যে অন্যতম হলো আনারস। কি অবাক হচ্ছেন? অবাক হলেও

এই গরমে শ্বাসকষ্ট হলে ৫ করণীয়

ঢাকা: গ্রীষ্মকালে শ্বাসকষ্টের সমস্যা বেড়ে যায়। যাদের ফুসফুস সংক্রান্ত জটিলতা রয়েছে তাদের জন্য তৈরি হয় সমস্যা। সেই সঙ্গে বাড়ছে তাপমাত্রা আর পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনার প্রকোপ। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কিছু বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। গরমে হাঁচি-কাশি যেমন বাড়ে, তেমন শ্বাস নিতে অসুবিধা হয় অনেক সময়ে। রোদের তাপ বাড়ার সঙ্গেই এ সব অসুস্থতাও বেশি দেখা দেয়। ১. রোদে বের হওয়া যথা সম্ভব কমাতে হবে। প্রয়োজনে বের হলে অবশ্যই বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করে বের

যে ডায়েটে ওজন কমবে আবার রোগও সারবে

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে একেকজন ভিন্ন ভিন্ন ডায়েট চার্ট মেনে চলেন। এভাবেই অনেকে ভুল ডায়েট মেনে ওজন কমানোর বদলে আরও বাড়িয়ে ফেলেন। একসময় এর প্রভাব পড়ে শরীরে। দীর্ঘসময় ধরে শরীর বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান না পেয়ে নানা রোগের লক্ষণ প্রকাশ পেতে থাকে। এজন্য ডায়েট করার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। বর্তমানে আমরা বিভিন্ন ধরনের ডায়েটের নাম শুনেছি যেমন- অ্যাটকিনস ডায়েট, ভেগান ডায়েট, কেটজেনিক ডায়েট, রও ফুড ডায়েট, ইন্টারমিটেন্ট ফাস্টিং ডায়েট, রেইনবো ডায়েট ইত্যাদি। সবগুলো ডায়েটের বিশেষ

৩ উপাদানেই ডায়াবেটিস থাকবে নিয়ন্ত্রণে

ডায়াবেটিস এখন জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে দ্রুত বেড়ে চলা রোগগুলোর মধ্যে একটি হলো ডায়াবেটিস। এ রোগ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে প্রতিরোধ করা সম্ভব। এজন্য নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে জীবন-যাপন করা বাধ্যতামূলক। ডায়াবেটিস হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। ফলে অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এজন্য ডায়াবেটিস রোগীর রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরি। এজন্য প্রয়োজন সুষম ডায়েটের। মিষ্টিজাতীয় খাবার নিয়ন্ত্রণ ও আয়ুর্বেদিক চিকিত্সার মাধ্যমে ডায়াবেটিস অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, আয়ুর্বেদ

করোনা প্রতিরোধ করতে পারে যেসব ফল

করোনাভাইরাস নিরাময়ে এখন পর্যন্ত কোনো স্থায়ী চিকিৎসা নেই। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, ব্যক্তিগত সচেতনতার পাশাপাশি করোনা প্রতিরোধের প্রথম ধাপ হলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো। যার ফলে শ্বাসযন্ত্র এবং ফুসফুসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে করোনাকালে সবচেয়ে কার্যকারি ভিটামিন-সি যুক্ত খাদ্য গ্রহণ। পুষ্টি বিজ্ঞানীদের মতে, আমলকিতে পেয়ারার চেয়েও ১০ গুণ বেশি ভিটামিন সি থাকে। কাগজি লেবুর চেয়ে ৩ গুণ ভিটামিন সি থাকে। এছাড়াও আমলকিতে কমলার চেয়ে ১৫ থেকে ২০ গুণ বেশি, আপেলের