নতুন নীতিমালায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তিতে যেসব শর্ত

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে খতিয়ান ও নামজারি করা নিজস্ব ভূমিতে অবকাঠামো এবং হালনাগাদ একাডেমিক স্বীকৃতি বা অধিভুক্তি থাকা সাপেক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গ্রেডিং করে এমপিও দেয়া হবে। গ্রেডিংয়ের শর্ত পূরণ না হলে এমপিওভুক্তির সুযোগ পাবে না। শহর এলাকার চেয়ে মফস্বল এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তিতে গ্রেডিংয়ে শর্ত শিথিল করা হয়েছে। পাশাপাশি মহিলা কলেজ এমপিওভুক্তির গ্রেডিংয়ের শর্তও শিথিল করা হয়েছে। এসব বিধান রেখে ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০২১’ জারি করেছে সরকার। রোববার (২৮ মার্চ) স্বাক্ষরিত নীতিমালাটি সোমবার

ফর্সা এবং দাগহীন ত্বকের চটজলদি সমাধান জেনে নিন

ফর্সা, কোমল ও দাগহীন ত্বক সকলেরই কাম্য। মুখের ত্বকে ব্রণ, মেছতা কিংবা অন্য কোনো কিছুর দাগ থাকলে স্বাভাবিকভাবেই আত্মবিশ্বাস কমে আসে। সেকারণে দাগহীন কোমল ত্বক পেতে অনেকে ত্বক বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হয়ে থাকেন। ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতেও অনেকে অনেক ধরণের কাজ করে থাকেন। কিন্তু দাগহীন ফর্সা কোমল ত্বক পেতে এতো কিছু করার সত্যিই কোনো প্রয়োজন নেই। প্রকৃতিতেই রয়েছে অনেক কিছুর সমাধান। প্রাকৃতিক উপায়ে খুব সহজেই পেতে পারেন মনের মতো দাগহীন ফর্সা কোমল ত্বক। আর এতে সময়ও ব্যয়

ত্বক থেকে আচিল ও তিল দূর করার ২টি সহজ উপায় জেনে নিন

আঁচিল এক ধরনের টিউমারের (tumor ) মত গ্রোথ। ত্বকের (skin) অংশ বিশেষ শক্ত, মোটা, খসখসে দানার মত বৃদ্ধি পায়। এটি ভাইরাল ওয়ার্টস এইচপিভি বা হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস দ্বারা শরীরে সংক্রমিত হয়। আঁচিল ও তিল দুই ভাবে দূর করা যায়। ১/ সার্জিক্যাল উপায় (surgical way) ২/ প্রাকিতিক উপায় (theoretical way) সার্জিক্যাল উপায় : চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে আঁচিল ও তিল দূর করা হয়। এটাই সবচেয়ে নিরাপদ উপায়। প্রাকিতিক উপায়ঃ ১/ অ্যাপল সিডার ভিনেগার : বাড়িতে বসে আঁচিল ও

ত্বকের যেকোনো দাগ মুছে ফেলার ৫টি ঘরোয়া উপায়

দৃঢ় মনোবল থাকলে অবশ্যই প্রাকৃতিক উপায়ে ত্বকের দাগগুলো দূর করা সম্ভব। দাগ দূর করার জন্য আজকে আপনাদের জন্য রইল কিছু প্রাকৃতিক সমাধান। বেশি ওজন বা সন্তান হওয়ার কারণে যাদের ত্বক ফেটে দাগ হয়েছে, তাদেরও কাজে আসবে এই উপায় গুলো। চলুন জেনে নিই লেবু ও শসার রসঃ(Lemon and sorghum juice) একটি গোটা লেবু চিপে নিন। এতে একটি মাঝারি আকারের শসার চার ভাগের এক ভাগ অংশের রস বের করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি আক্রান্ত জায়গায় আলতো ঘষে

ফর্সা, দাগবিহীন ত্বকের জন্য ঘরে বসেই ব্লিচ করুন

আয়নায় তাকালেন, সবার আগে চোখ চলে গেল ব্রণের দাগটির দিকে, অথবা কালো ছোপটি দৃষ্টি কেড়ে নিল বা এক আধ দিন রোদে ঘুরেছেন? ব্যাস মুখ, হাত আর পা এর পাতার ত্বক (skin) দেখে নিজেই নিজেকে চিনতে পারছেন না, কিন্তু কয়েকদিন পরই হয়ত বা একটা ফাংশান আছে, এখন কী হবে? এমনটা আমাদের সবার সাথেই কখনো না কখনো হয়েছে। কিন্তু তাই বলে কি বাইরে যাব না? ব্রণের দাগটাকে রয়ে যেতে দেব? না, তা নিশ্চয়ই কেউ চান না। অনেকেই

রাতে ঘুমানোর আগে যা ভুলেও করবেন না

সভ্যতা যত আধুনিক হচ্ছে, মানুষের লাইফস্টাইল ততো বদলাচ্ছে। এখনকার দিনে বহু মানুষই নিদ্রাহীনতায় ভোগেন (sleep deprivation)। এর ফলে নানা রকম শারীরিক সমস্যাও দেখা দেয়। রাত্রে শোয়ার আগে বিশেষ কয়েকটি কাজ না করলেই ঘুমের সমস্যার হাত থেকে মুক্তি মিলবে। কী কী কাজ সেগুলি? আসুন, জেনে নিই; ১. রাতে অতিরিক্ত তেল-মশলাযুক্ত খাবার খাবেন না (Do not eat extra oil-spiced food at night)। তাতে গ্যাস্ট্রিকের (gastric) সমস্যা দেখা দেয়। এর ফলে ঘুমেরও বিঘ্ন ঘটে। ২. শোবার আগে মিন্ট

যমজ সন্তান কেন হয়?

আজকাল বাংলাদেশে যমজ সন্তান হবার সম্ভবনা আগের চেয়ে অনেক বেশী। আজকাল অনেক মায়েরাই দেরীতে সন্তান গ্রহণ করেন এবং বর্তমান সময়ে নিঃসন্তান দম্পতিদের চিকিৎসার অগ্রগতির কারণে যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বহুগুণে বেড়ে গেছে। এই জন্য শুধু বাংলাদেশেই নয়, সারা পৃথিবীতেই যমজ সন্তান জন্মানোর প্রকোপ বেড়ে গেছে। প্রতি ৬৫ জনে একজন মায়ের সাধারণ প্রক্রিয়াতেই দুটি যমজ সন্তান হতে পারে। মায়ের পরিবারে কেউ যমজ থেকে থাকলে এর সম্ভাবনা বেশি থাকে। প্রতি ১০,০০০ এ একজন মায়ের তিনটি যমজ সন্তান

ঝামেলামুক্ত দ্রুত ওজন কমানোর ৬টি সহজ কৌশল

খুবই যন্ত্রণাদায়ক কাজগুলোর মধ্যে ওজন কমানো একটি। ওজন একবার বেড়ে গেলে তা পুনরায় আগের অবস্থানে নিয়ে যাওয়া অনেক কষ্টসাধ্য কাজ। অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় এবং অনেক কিছু ত্যাগ করে নিয়ে তবেই ওজন কমানো সম্ভব হয়। অনেকেই এই ঝামেলার কাজ করতে বিরক্ত বোধ করেন যার ফলে ওজনটা আর কমানো হয়ে উঠে না। তবে কিছু কৌশল রয়েছে যার মাধ্যমে ঝামেলামুক্ত ভাবে ওজন কমিয়ে নিতে পারেন খুব সহজেই। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক ওজন কমানোর ঝামেলামুক্ত কিছু সহজ

চুলের যত্ন হবে ঘরোয়া উপকরণ দিয়ে মাত্র ১০ মিনিটে

কাজে ব্যস্ত থাকলে চুলের যত্ন নেয়া হয় না। আবার চুলের যত্ন নেয়ার উপকরণ কেনাকাটা করাও সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তারপরও কিছু বাড়তি চুলের যত্ন অবশ্যই দরকার। তাই খুব বেশি না পারলেও সপ্তাহে দু’দিন অন্তত নিয়ম করে এই ঘরোয়া প্যাকগুলো ব্যবহার করাই যায়। তাই চলুন জেনে নিই ঘরে থাকা অল্প কিছু উপকরণ নিয়েই কীভাবে চুলের যত্ন নিতে পারবেন – (১) ঘরে যদি ডিম থাকে তাহলে সেটি চুলের জন্য ব্যবহার করতে পারেন। তবে যদি আপনার চুল রুক্ষ হয় তাহলে

ফর্সা হতে চাইলে ব্যবহার করুন এই ৭টি ফলের খোসা

ভাবছেন কী আবোল-তাবোল বকছি, তাই তো? কিন্তু বাস্তবিকই ফলের খোসা ত্বককে উজ্জ্বল করতে দারুণ কাজে আসে। কারণ এতে রয়েছে একাধিক পুষ্টিকর (nutritious ) উপাদান, যা ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি (skin’s health) ঘটিয়ে ত্বককে ফর্সা এবং প্রাণবন্ত করে তোলে। ফর্সা ত্বক (ফেয়ার skin) পেতে কে না চায় বলুন। তাই তো গত কয়েক বছরে সারাবিশ্বে বিউটি প্রডাক্টের রমরমা এত চোখে পড়ার মতো বেড়েছে। কিন্তু বিউটি প্রোডাক্টের খরচ অনেক বেশি। তাই আপনার জন্যই এই লেখা। ফলের খোসাতে যেমন অনেক