যে পাঁচ কারণে ঘুমের মধ্যেই মৃ ত্যু হয়!

মানুষ সব কিছুর খবর আগাম দিতে পারলেও মৃ ত্যুর খবর আগাম জা’নতে বা বলতে পারে না। কিন্তু ঘুমের মধ্যে মানুষের মৃ ত্যুর খবর আম’রা শুনে থাকি। অনেকেই বলেন, ঘুমের মধ্যে মৃ ত্যু যেন শা’ন্তির চলে যাওয়া। কিন্তু তাই কি? ঘুমের মধ্যে ঠিক কী কী কারণে মৃ ত্যু হয় জা’নেন? অনেক ক্ষে’ত্রে শরী’রের মাত্রাতি’রিক্ত ওজন, শ্বা’সয’ন্ত্রের সম’স্যা, ঠান্ডা লে’গে নাক ব’ন্ধ হয়ে যাওয়া ও অন্যান্য বেশ কিছু কারণে মানুষের নাক ডাকার সম’স্যা হতে পারে। তবে স্লিপ

জেল্লাময় উজ্জ্বল ত্বক পেতে করনীয়

শীতে ত্বকের খেয়াল নিলে কিন্তু শুধু চলবে না। সারা বছর যদি ত্বক রাখতে চান জেল্লাদার তাহলে তার জন্য সামান্য হলেও রোজ কেয়ার নিতে শুরু করুন। আগেকার দিনে আমাদের মা দাদীদের স্কিন এমনিতেই সুন্দর থাকতো, আলাদা করে কিছু করতে হত না তাদের। কেন ভেবে দেখেছেন কখনও? শুধু টাটকা খাবার দাবার নয়। প্রকৃতি ছিল দূষণ মুক্ত। বাতাসে ছড়িয়ে থাকা বিষ আমাদের অজান্তেই আমাদের স্কিনের ক্ষতি করে অল্প বিস্তর রোজই। মাসে একবার পার্লার গিয়ে যারা ভাবছেন সব ঠিক

খাবারে ভেজাল চেনার উপায়

আমাদের প্রতিদিনের জীবনযাত্রায় একটি বড় সমস্যা হচ্ছে খাবারে ভেজাল। কারণ ভেজাল খাবার খেলে শরীরে বাসা বাঁধে নানা রোগ। ভেজাল খাবারের কারণে অকালে প্রাণও যায় অনেকের। খাবারে ভেজাল শনাক্ত করা গেলে অনেক বিপদ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। তাই সহজ কিছু কৌশলে শনাক্ত করে ফেলুন খাবারে ভেজাল। আসুন জেনে নেই কীভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন খাবারের ভেজাল শনাক্ত করবেন। কফির গুঁড়া কফির গুঁড়ায় ভেজাল শনাক্ত করার জন্য ১ গ্লাস পানির উপরে সামান্য কফির গুঁড়া ছিটিয়ে দিন। কফি পানির উপরে

ফ্রিজে রাখা দী’র্ঘদিনের পুরনো মাছে টাটকা স্বাদ আ’নবেন যেভাবে!

অতীতে বাঙালির বাড়িতে প্রতিবেলাতেই টাটকা মাছ ঢুকতো রান্নাঘরে। সেজন্য বাড়ির বয়স্করা এখন ফ্রিজে রাখা বাসি মাছ দেখলেই নাক উচু ক’রতেন। আফসোস করে বলেন, বাসি মাছের কি আর সেই স্বাদ হয়! কিন্তু বর্তমানে ব্যস্ত জীবন, কাজে’র চা’পে এখন আর কারোরই সময় নেই প্রতিদিন বাজার। তাই সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কয়েকদিনের বাজার করে ফ্রিজে রাখা এখন প্রায় সব বাড়ির নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। অগত্যা বাসি মাছ খাওয়া আর টাটকা মাছের স্বাদের জন্য হা-হুতাশ ক’রতে হয় সবাইকে। তবে খুব সহজেই

এসি ছাড়াই ঘর হবে ঠান্ডা

প্রচন্ড গরমে অতিষ্ট জনজীবন। এই গরমে আরাম দিতে পারে এয়ারকন্ডিশনার। তবে বেশিরভাগ মানুষেরই ঘরে এসি নেই। তবে এসি ছাড়াও সাধারণ কিছু উপায়ে ঘরকে তুলনামূলক ঠান্ডা করতে পারেন। চলুন তেমন কয়েকটি উপায় সম্পর্কে জেনে নিই। দুপুরের সময় ঘরের দক্ষিণ ও পশ্চিম দিকে জানালা থাকলে তা বন্ধ করে দিন। যেখানে সরাসরি সূর্যের আলো পড়ে সেসব জানালার পর্দা টেনে রাখুন।খেয়াল করুন আপনার ঘরে কোন জানালা দিয়ে সবচেয়ে বেশি হাওয়া-বাতাস খেলে, এমন জানলা বা দরজা থাকলে সেটি খোলা রাখুন,

প্র’স্রাবের সময় ফেনা হলে সা’বধান, জে’নে নিন এটা কোন কোন রোগের আ’লামত!

জীবন বড়ই গোলমেলে। কোন বাঁকে যে মৃ’ত্যু লুকিয়ে, তা বোঝা বেজায় ক’ঠিন কাজ। তাই তো সময় থাকতে শ’রীরের ভাষাকে রপ্ত ক’রতে শিখু’ন। জা’নার চেষ্টা করুন শ’রীরের সেই সব ছোট ছোট লক্ষণকে, যা দেখে সহজেই বোঝা সম্ভব দে’হে কোনও রোগ বাসা বেঁধেছে কিনা। যেমন ধ’রুন প্রস্রাব। ইউরিন দেখে শ’রীরের অন্দরের একাধিক গোপন রদবদল স’ম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা করে নেওয়া সম্ভব। শুধু শিখে নিতে হবে শ’রীরের ভাষাটা। তাহলেই কেল্লাফতে! অনেকেরই প্রস্রাব করার সময় ফেনা হয়। কেন এমনটা হয়

যেসব খাদ্যাভাসে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ে

বিশ্ব জুড়ে হৃদরোগে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। অনেকের ধারণা, ধূমপান না করলেই হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখা যায় ।তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ধূমপান হৃদরোগের অন্যতম কারণ।কিন্তু ধূমপান ছাড়াও নানা খাদ্যাভ্যাস হৃৎপিণ্ডের ক্ষতি করে।হঠাৎ করে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু প্রতিরোধে কিছু খাদ্যাভাস পরিবর্তন করা জরুরী। যেমন- ঠাণ্ডা পানীয়: পিপাসা পেলে কিংবা পছন্দের বলে অনেকেই নিয়মিত বিভিন্ন বাজারজাত ঠাণ্ডা পানীয় পান করেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোল্ড ড্রিঙ্কের অতিরিক্ত সুগার ও সোডা ধমনীর উপর চাপ ফেলে। এ ছাড়া এ পানীয় পানে শরীরের পানির

গর্ভাবস্থায় শারীরিক সম্পর্ক কি ঝুঁকিপূর্ণ ?

বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পর সব দম্পতির চাওয়া থাকে সন্তান। একজন মা গর্ভাবস্থায় সব ধরনের সর্তকতা অবলম্বন করে থাকে। সন্তানকে পৃথিবীর আলো দেখাতে তিনি সব সুখ বিসর্জন দিয়ে থাকেন। গর্ভবস্থায় শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে অনেক দম্পতি বুঝতে পারে না যে তারা কী করবেন। আর এই নিয়ে অনেক ভুল ধারণা রয়েছে তাদের মধ্যে। গর্ভাবস্থায় সমাজে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে। অনেক দম্পতি মনে করেন এ সময় শারীরিক সম্পর্কে জড়ানো উচিত নয়। এ ধারণা মোটেও সঠিক নয়। আসুন জেনে নেই

জে’নে নিন স্মার্টফোন থেকে চোখ বাঁ’চানোর সহজ উপায়

স্মা’র্ট ফোন ছাড়া এখন একদিনও চলে না। নিজেকে আপডেট রাখা থেকে শুরু করে ফ্যাশন সব জায়গায় সবার উপরে স্মা’র্ট ফোন। সারাক্ষণ মোবাইল স্ক্রিনে চোখ রাখা নতুন প্রজ’ন্মের জন্য ফ্যাশন হলেও বাড়ছে ক্ষ’তির পরিমাণ। অতিরি’ক্ত মোবাইল ব্যবহারে ক্ষ’তি হচ্ছে চোখ ও শ’রীরের। চা’প পড়ছে মস্তিষ্কে। তবে চাইলে এই য’ন্ত্রণা থেকে মু’ক্তি পেতে পারেন। সেক্ষেত্রে মানতে হবে কিছু নিয়ম। ১. দিনে বেশ কয়েকবার চোখে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিন। বাইরে থেকে এসে অথবা কম্পিউটারে বসে একটানা কাজে’র করার

ফ্রিজে রাখলেও রুটি নরম থাকবে যেভাবে

অনেকেই একবারে বেশি রুটি বানিয়ে পরে খেতে পারেন না কারণ রুটিগুলো পরে শক্ত হয়ে যায়। আসুন জে’নে নেই এই স’মস্যার সমাধান কী। আটা মেখে নেয়ার সময় হালকা তেল দিয়ে মাখু’ন এতে আটা নরম হবে এবং সংরক্ষণে সুবিধা হবে রুটি বানিয়ে হালকা করে সেঁকে নিন টেবিলে বড় করে পত্রিকা বিছিয়ে সেঁকে নেয়া রুটিগুলো বিছিয়ে শুকিয়ে নিন জিপলক ব্যাগ বা এয়ার টাইট বক্সে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন খাওয়ার আগে বের করে সেঁকে নিন ছুটির দিনে সময় করে