প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্য একটি দুঃসংবাদ

ফেনীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করছে হ্যাকাররা। ইতোমধ্যে হ্যাকিং বা প্রযুক্তিগত প্রতারণার শিকার হয়ে উপবৃত্তির টাকা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন ৫৬ জন অভিভাবক। এছাড়া ১২৯ জন অভিভাবকের মোবাইলে সন্তানের উপবৃত্তির টাকা জমা হয়নি। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নূরুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, জেলায় ৮৬ হাজার ৩৯ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৫৬ জন শিক্ষার্থীর উপবৃত্তির টাকা হ্যাক করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদের তথ্য আবার যাচাইয়ের জন্য সব উপজেলা দফতরে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জেলা

প্রাথমিকে এক কর্মস্থলে ৩ বছরের বেশি থাকা যাবে না

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) অধিনস্থ কর্মচারীরা তিন বছরের বেশি এক প্রতিষ্ঠানে থাকতে পারবেন না। এ সময়ের পর তাকে ভিন্ন স্থানে বদলি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডিপিই। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থেকে এ তথ্য জানা গেছে। ডিপিই থেকে জানা যায়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, প্রাথমিকের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আলাদা নিয়োগ বিধিমালা রয়েছে। সে অনুযায়ী নিয়োগ ও বদলি কার্যক্রম করা হয়। তবে গত কয়েক বছর আগে কর্মচারীদের নিয়োগ বিধিমালার অনেক কিছু অনুসরণ করা হচ্ছে না। জানা গেছে, কর্মচারী এক

উপবৃত্তির টাকা নিয়ে প্রতারণা, নতুন উদ্যোগ গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের

সম্প্রতি ডাক বিভাগের ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’ এর মাধ্যমে প্রাথমিক পর্যায়ে এক কোটি ৪০ লাখ ক্ষুদে শিক্ষার্থীর উপবৃত্তি বিতরণ শুরু হয়েছে। এরপর দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রতারক চক্র শিক্ষার্থীদের মায়েদের মোবাইলে ফোন করে নগদের পিন নাম্বার, ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (ওটিপি) জালিয়াতি করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ নিয়ে সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। সংবাদগুলো প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের

ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি নিলে স্কুলের কমিটি বাতিল, টাকা ফেরতের নির্দেশ

এসএসসির ফরম পূরণে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে বেশ কিছু স্কুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। এ পরিস্থিতিতে কোন স্কুল ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি নিয়ে থাকলে সে টাকা শিক্ষার্থীদের ফেরত দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে ঢাকা বোর্ড। ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগের প্রমাণ পেলে হাইকোর্টের রুল অনুসারে স্কুলের পরিচালনা কমিটি বাতিল করা হবে বলেও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের হুঁশিয়ার করেছে বোর্ড। ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড থেকে সব স্কুলের প্রধান শিক্ষকদের পাঠানো এক চিঠিতে

এসএসসি-এইচএসসিতে ‘অটোপাস’দেওয়া হবে কিনা,সেই ব্যাপারে যা জানাল বোর্ড চেয়ারম্যান

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় আর অটোপাস দিতে চাই না। একবার অটোপাস দেয়াতে শিক্ষার্থীদের অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। আমরা তাদের আর বিপদে ফেলতে চাই না। পরীক্ষা নিয়েই তাদের রেজাল্ট দিতে চাই। মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাতে করোনাকালীন শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে আয়োজিত দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসের লাইভ অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান আন্তঃশিক্ষা সমন্বয় বোর্ড সাব কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর নেহাল আহমেদ। তিনি বলেন, আমরা অটোপাস দিতে চাই না। শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নিয়েই রেজাল্ট দিতে চাই। আমাদের

পদোন্নতি পাওয়া প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি স্থায়ী হচ্ছে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিভাগীয় প্রার্থী হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের চাকরি স্থায়ী করার নির্দেশ দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) ডিপিইর এ সংক্রান্ত আদেশ বুধবার (৭ এপ্রিল) প্রকাশিত হয়। এতে সতর্ক করে বলা হয়, পদোন্নতি পাওয়া এসব শিক্ষকদের চাকরি এক সপ্তাহের মধ্যে স্থায়ী করতে হবে। নয়তো সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ডিপিই সূত্রে জানা গেছে, চাকরি স্থায়ীকরণ না করে দেশের কিছু কিছু জেলার শিক্ষা কর্মকর্তা সময়ক্ষেপণ করছেন। অসৎ

সরকারিকৃত স্কুল শিক্ষকের জাল সনদ নিয়ে তোলপাড়!

চাঁদপুরের সরকারিকৃত শাহরাস্তি বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জাকির হোসেনের জাল শিক্ষক নিবন্ধন সনদ নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। সুক্ষ্ম কারচুপী করে তৈরি করা জাল সনদটি বিভ্রান্ত করেছে স্বয়ং এনটিআরসিএর কর্মকর্তাদের। তবে, অবশেষে কাগজপত্র ঘেঁটে শিক্ষকের সনদটি জাল বলে প্রমাণ পেয়েছে এনটিআরসিএ। সোমবার (৫ এপ্রিল) এনটিআরসিএর কর্মকর্তারা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, চাঁদপুরের শাহরাস্তি সরকারি বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জাকির হোসেন জাল শিক্ষক নিবন্ধন সনদ নিয়ে চাকরি করছিলেন। পরে ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের ৬ নভেম্বর তার

শিক্ষকদের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সুখবর

আজ সোমবার থেকে সারাদেশে এক সপ্তাহের লকডাউন শুরু হয়েছে। এসময় সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সীমিত আকারে খোলা রয়েছে। তবে সুখবর পেয়েছেন শিক্ষকরা। শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, লকডাউনের সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাসা-বাড়ির বাইরে যাবেন না। শিক্ষার্থীরাও বাড়িতে অবস্থান করবে। এসময় শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বন্ধ রাখতে হবে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) অধ্যাপক শাহেদুল খবির বলেন, সরকার ঘোষিত লকডাউন চলাকালে শিক্ষকরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। শিক্ষার্থীদের

এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে

করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ রোধে সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে সারাদেশে মানুষ ও সব ধরনের যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তবে, লকডাউনের সময়ে এসএসসির ফরম পূরণ চলবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা বোর্ডের কর্মকর্তারা। গত ১ এপ্রিল থেকে এসএসসির ফরম পূরণ শুরু হয়। ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ফরম পূরণ চলার কথা আছে। ৫ এপ্রিল থেকে সারাদেশে লকডাউন শুরু হচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে এসএসসির ফরম পূরণ চলবে কিনা তা জানতে চাওয়া হলে রোববার (৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ

অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত সাত কলেজের সকল পরীক্ষা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সাতটি সরকারি কলেজের চলমান সকল পরীক্ষা স্থগিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ৷ রবিবার ( ৪ এপ্রিল) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ ছানাউল্লাহ্ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয় ৷ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের ২০১৯ সালের ২য় বর্ষ অনার্স অনিয়মিত, মানোন্নয়ন ও বিশেষ (অনিয়মিত, মানোন্নয়ন) এবং ২০১৮ সনের ডিগ্রী পাস ও সার্টিফিকেট কোর্স ৩য় বর্ষ (নতুন সিলেবাস) পরীক্ষা সমূহ স্থগিত