বাঁধন এখন কলকাতার চোখের মণি

রহস্য সিরিজ ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি’। পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের সিরিজটির টিজার প্রকাশিত হয়েছে। ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্র দেখে চমকে উঠেছেন ভারতের দর্শকরা। প্রকাশিত টিজারে আলো-আঁধারিতে সেই নারীকে দেখে আপ্লুত দর্শক।

টিজার মুক্তি পেতেই নেটিজেনদের মধ্যে সাড়া ফেলেছে। খুব শিগগিরই এই সিরিজটির স্ট্রিমিং শুরু হবে এসভিএফ-এর হইচই প্ল্যাটফর্মে। মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি এই ওয়েব সিরিজ।

সিরিজটির কেন্দ্রীয় চরিত্রের নাম মুসকান জুবেরী। তিনি বাংলাদেশের আজমেরী হক বাঁধন। দেশে মূলত টেলিভিশনে অভিনয় করেন এই শিল্পী। এবারই প্রথমবারের মতো ভারতে অভিনয় করতে যান বাঁধন।

জানা গেছে, পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের কাজ দেখে থাকলেও তার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ ছিল না। মহামারি করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যেই হঠাৎ সৃজিতের হোয়াটসঅ্যাপ পান তিনি। কিন্তু তিনি বিশ্বাস করেননি। পরে এক প্রযোজকের মাধ্যমে কন-কল করে তার নাগাল পান সৃজিত।

পরে মুসকান জুবেরীর মতো একটা শক্তিশালী চরিত্রে অভিনয় করানোর আগে মোহাম্মদ নাজিমউদ্দিনের লেখা উপন্যাসটি বাঁধনকে পাঠান সৃজিত।

‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি’ সিরিজের শুটিং হয় পশ্চিমবঙ্গের পাঁচঘড়ায়। যে পুরনো বাড়িটি টিজারে দেখা যাচ্ছে সেখানে সত্যজিৎ রায় ‘ঘরে বাইরে’ ছবির শুটিং করেছিলেন। সেই বাড়িতেই এবার নতুন রহস্যের জাল বুনেছেন মুসকান জুবেরী।

ছবির শুটিং হয় পাহাড়েও। সিকিমে কোভিড পরিস্থিতির পরেই ছবির শুটিংয়ের কাজ শুরু হয়। বাঁধনের অভিনয়ে খুশি পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়। কারণ বাংলা ওয়েব সিরিজে ‘ক্যানিবালিজম’ নিয়ে কাজ সম্ভবত এই প্রথম।

বাঁধন ছোটপর্দায় খুবই পরিচিত মুখ। তার বিভিন্ন নাটক ও সিরিয়াল খুবই আদৃত। কিন্তু এই ওয়েব সিরিজের অভিজ্ঞতা তার কাছে একেবারেই অন্যরকম।

বাঁধনের মতে, ছবিতে নারীদের জন্য ‘হয় ভালো নয় খারাপ’ চরিত্র লেখা হয়। মুসকান জুবেরীর চরিত্রটি ধূসর। তাই পরতে পরতে সেই চরিত্রকে সাতমাস ধরে অনলাইন ওয়ার্কশপের মাধ্যমে আবিষ্কার করেছেন বাঁধন।

ব্যক্তিগত জীবনে বাঁধন ‘সিঙ্গল মাদার’। মেয়েকে নিয়েই অবসর সময় কাটে তার। বিয়ে বিচ্ছেদের পরে মেয়ের কাস্টডি নিয়েও আইনি লড়াইয়ে জর্জরিত হয়েছেন তিনি। সেই যুদ্ধে জিতে বাঁধন ও তার কন্যা একেবারেই বেঁধে বেঁধে থাকেন।
সূত্র: জিনিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *