শ্যাম্পু করতে গিয়ে প্রতিনিয়তই যে ভুলগুলো করে চলেছেন আপনি!

চুল মানুষের সৌন্দর্যের প্রতীক। তাই আমাদের সবারই চুলের সঠিক যত্ন নেওয়া উচিত। চুল আমাদের ত্বকের অংশবিশেষ হিসেবেই রোদের তাপ, বিভিন্ন জী’বাণুর আ’ক্রমণ ও ধুলা-ময়লার ক্ষ’তিকর প্র’ভাব থেকে মাথার ত্বককে র’ক্ষা করে।

কিন্তু অনেকে চুলের যত্নের ব্যাপারে খামখেয়ালীপনা করেন। চুলের যত্নে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত উপাদান হল শ্যাম্পু।শ্যাম্পু হচ্ছে চুলের যত্নে ব্যবহৃত একটি পণ্য। এটি মূলত চুল থেকে তৈলাক্তভাব, ময়লা, খুশকি, পরিবেশের বিভিন্ন বিষাক্ত পদার্থ, এবং অন্যান্য দূষিত পদার্থ চুল থেকে দূ’র করে। অর্থাৎ শ্যাম্পু চুলে অবাঞ্ছিত পদার্থ পরি’ষ্কার করে এবং তৈরি হতে বা’ধা দেয়, কারণ এসকল পদার্থ চুলের ক্ষ’তি করে এবং সেই সাথে চুল সামলাতে স’মস্যার সৃষ্টি করে।

শ্যাম্পু করার পরবর্তীকালে প্রায় সময়ই যা ব্যবহার করা হয়, তা হচ্ছে কন্ডিশনার, যা চুল আচড়ানো, ও চুলের স্টাইল করার সময় চুলকে নমনীয় হতে সাহায্য করে। শ্যাম্পু করার পর চুলে যে রুক্ষ’তার সৃষ্টি হয়, কন্ডিশনার তা কাটিয়ে চুলকে আরো নরম করে।

চুলে যে কোন সময় শ্যাম্পু করা বিভিন্ন পার্থক্য তৈরি ক’রতে পারে। প্রতিদিন সকালে সহজ কাজ গুলোর মধ্যে শ্যাম্পু করা একটি, কিন্তু আপনি কি এটা সঠিক ভাবে করেন?? আমা’রা এখানে শ্যাম্পু করার কয়েকটি কমন ভুল নিয়ে আলোচনা করবো যেগুলো আপনার এখনি ব’ন্ধ করা উচিত:

ভুল শ্যাম্পু নির্বাচন: আপনার চুলের জন্য সঠিক হবে এমন একটি শ্যাম্পু নির্বাচন করা উচিত। যদি প্রয়োজন হয় তবে চুল বিশেষজ্ঞ বা ট্রাইকোলোজিস্ট এর সাথে আলোচনা ক’রতে পারেন। চুল পরি’ষ্কার করার জন্য বারবার একই রকম শ্যাম্পু বা কন্ডিশনার ব্যবহার করা বাদ দিয়ে বিভিন্ন রকম শ্যাম্পু-কন্ডিশনার ব্যবহার করা উচিত।

চুল ভালোভাবে না ভেজানো: শ্যম্পু করার আগে চুলকে ভালোভাবে ভিজিয়ে নেয়া উচিত যেন উপাদান গুলো ভালোভাবে কাজ ক’রতে পারে। ২-৩ মিনিট ধ’রে পানি দিয়ে চুল ভেজানো দরকার যেন সব চুল ভালোভাবে ভিজে আর উপাদান গুলো শোষণ করে।

সঠিক স্থানে শ্যাম্পু না পৌছানো: আগার থেকে গোড়ার দিকে শ্যাম্পুর বেশি দরকার। তাই পরবর্তীতে যখন শ্যাম্পু করবেন তখন খেয়াল রাখবেন শ্যাম্পু যেন গোড়ার দিকে ভালোকরে এবং কন্ডিশনার যেন আগার দিকে ভালো ভাবে মিশে।

প্রতিদিন শ্যাম্পু করা: প্রতিদিন চুল ধোয়া একটি সাধারণ ভুল যা প্রায়ই সবাই করে থাকে। এই কাজটি আপনার চুলের মা’রাত্মক ক্ষ’তি ক’রতে পারে যা আপনি কল্পনাও ক’রতে পারেন না। চেষ্টা করুন সপ্তাহে ৩-৪ বার চুল ধোয়ার। যদি মনে হয় যে চুল তেল চিটচিটে হয়ে যাচ্ছে তবে মধ্যে একবার ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার ক’রতে পারেন।

শ্যাম্পু করার সাথে সাথেই ধোয়া: শ্যাম্পু লা’গানোর সাথে সাথে চুল পানি দিয়ে ধোবেন না। শ্যাম্পুকে কিছুক্ষণ চুলের উপর থাকতে দিন যাতে ভালোভাবে কাজ ক’রতে পারে। গরম পানির পরিবর্তে ঠান্ডা পানি ব্যবহার করুন। ঠান্ডা পানি চুলের কিউটিকলের জন্য ভালো যা চুলকে পরবর্তী ড্যামেজ থেকে র’ক্ষা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *